ত্রাণের নামে শিক্ষকদের চাঁদাবাজি বেআইনি

Spread the love

উৎস ডেস্কঃ
করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে বৈশাখী ভাতার ২০ শতাংশ টাকা ইতোমধ্যে প্রদান করেছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। তাই করোনার নামে অতিরিক্ত টাকা চাঁদা আদায় সম্পূর্ণ বেআইনি বলে জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।ত্রাণ সহায়তার জন্য বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় শিক্ষকদের কাছ থেকে ৫০০ বা ১ হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।

তাই, এসব অতিরিক্ত চাঁদা আদায় বন্ধ করতে বলেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর আর কোন শিক্ষকের কাছ থেকে অতিরিক্ত চাঁদা আদায় করা হলে তা ফেরত দিতেও বলা হয়েছে। অধিদপ্তর থেকে দেশের সব বিভাগীয় উপ-পরিচালকদের এসব নির্দেশনা দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো ফসিউল্লাহ স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মােকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে প্রদানের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন সব শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারি নিজ নিজ বৈশাখি ভাতার ২০ শতাংশ টাকা ইতোমধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠিয়েছেন। এছাড়া অনেকেই নিজ নিজ সামর্থ্য অনুসারে স্বতঃস্ফুর্তভাবে অসহায়দের সহায়তা করছেন। সম্প্রতি ত্রাণ সাহায়তার নামে শিক্ষকদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি ও আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযােগ পাওয়া যাচ্ছে। এ ধরণের কর্মকাণ্ড বেআইনি।

চিঠিতে আরও বলা হয়, এ ধরণের কর্মকাণ্ড থেকে সবাইকে বিরত থাকার জন্য অনুরােধ করা হলাে এবং শিক্ষকদের চাঁদা না দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো। ইতােমধ্যে কারাে নিকট থেকে চাঁদা নেয়া হয়ে থাকলে তা ফেরত দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদেরকে অনুরােধ করা হলাে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x