বগুড়ায় সন্তানের মৃত্যুতে মায়ের আত্মহত্যা

Spread the love

উৎস ডেস্কঃ

ঘুমের ঘড়ে বাপ্পি নামের দুই বছরের এক শিশু মারা যাওয়ার পর ওই শিশুর মা লিপি রানী কীটনাশক পান করে আত্মহত্যা করেছে।

বুধবার ভোরে  বগুড়ার  বুড়ইল ইউনিয়নের পোঁতা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মৃত লিপি রানী পোঁতা গ্রামের বিপুল বর্মণের স্ত্রী।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মাদ জানান, প্রতিদিনের ন্যায় তারা খাওয়া দাওয়া শেষে নিজ নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে। এরপর বুধবার রাত ২ টার দিকে বিপুলের স্ত্রী লিপি জাগা পেয়ে দেখে তার একমাত্র সন্তান বাপ্পি নড়াচড়া করছে না। তখন সে চিৎকার শুরু করে। চিৎকার শুনে তার শ্বশুর-শাশুড়ি তার ঘরে এসে বাপ্পিকে মৃত অবস্থায় দেখতে পায়। এসময় লিপি বিলাপ করে বলতে থাকে আমার ছেলে মারা গেছে আমি আর বেঁচে থাকবো না। এরপর সে সবার অজান্তে কীটনাশক পান করে অসুস্থ হয়ে পরে। তখন প্রতিবেশীরা বিষয়টি টের পেয়ে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শওকত কবিরের সাথে যোগযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মা ও ছেলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে ওই ঘটনায় প্রতিবেশীরা তেমন কিছু বলতে পারছে না। তিনি আরও জানান, ময়না তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, লিপির স্বামী বিপুল বর্মণ জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় একটি চাল কলে শ্রমিকের কাজ করেন। একারণে তিনি সেখানেই অবস্থান করেন। মাঝে মধ্যে বাড়িতে আসেন বিপুল। কিন্তু সস্প্রতি করোনাভাইরাসের কারণে যানবাহন না থাকায় বিপুল বর্মণ নিয়মিত বাড়িতে আসতে পারেন না। বাড়িতে বিপুলের বাবা-মা এবং স্ত্রী সন্তান বসবাস করতেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x