মহেশপুরে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ইউপি সদস্য বিজিবি’র হাতে আটক

Spread the love
  • 32
    Shares

শামীম খানঃ

ইয়াবা সেবন কারীদের জোরপূর্বক ছাড়িয়ে নেওয়ায় ঘটনায় বিজিবি’র সদস্যরা ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও ইউপি সদস্য বিশারত আলী বিশুকে (৪৫) আটক করে। আটকের পর তাকে গুরুতর অবস্থায় ২পিচ ইয়াবা ও ১টি চাপাতি দিয়ে মহেশপুর থানায় সোপর্দ্দ করা হয়েছে।

পরিবারের অভিযোগ এক ইয়াবা সেবন কারীকে ছাড়াতে সুপারিশ করতে যাওয়ার কারনে বিজিবি’র সদস্যরা বিশারত আলী বিশুকে বাড়ী থেকে ধরে নিয়ে যায়। পরে তাকে মারপিট করে থানায় সন্ত্রাসী হিসেবে সোপর্দ্দ করেছে।
এঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার শ্যামকুড় গ্রামে।

ইউপি সদস্য বিশারত আলী বিশুর পাশ লেখক শ্যামকুড় খোন্দকার পাড়ার শাহিন জানান, গত শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে নিজাম গাজীর তত্বাবধানে ৭-৮ জন লোক শ্যামকুড় গ্রামের কলনীপাড়া মাঠে ফুলচাষী নুর মোহাম্মদের কুড়ে ঘরে ইয়াবা সেবন করছিলো। এ সময় বিজিবি’র গোয়েন্দা ইউনিটের এক সদস্য সেখানে উপস্থিত হলে তারা পালিয়ে গেলেও শ্যামকুড় পশ্চিমপাড়ার আজাদ হোসেন নামক এক ইয়াবা সেবন কারীকে আটক করে। এ সময় আজাদ হোসেন এক বিজিবি’র সদস্যর উপর হামলা করে। এ খবর পেয়ে আজাদের পিতা বিশু ছেলের সাথে মারামারিতে অংশো নেয়। খবর পেয়ে ইউপি সদস্য বিশারত আলী বিশু সেখানে যায় এবং বিজিবি’র সদস্যকে তাকে ছেড়ে দিতে বলে। এক পর্যায়ে আজাদ ও তার পিতা সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শ্যামকুড় লড়াইঘাট বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা দুপুর ১টার দিকে ইউপি সদস্য বিশারত আলী বিশুকে বাড়ী থেকে ধরে নিয়ে যায়।
ইউপি সদস্য বিশুর ভাই মুকুল জানান,তার ভাইকে বিজিবি’র সদস্যরা বাড়ী থেকে জোর পুুর্বক ধরে নিয়ে যায়। সেখানে মারপিট করে থানায় দেওয়া হয়েছে।

শ্যামকুড় ইউপি চেয়ারম্যান আমানুল্লাহ হক জানান, আমি শুনেছি আজাদসহ কিছু লোক সেখানে নেশা করছিলো । ভারতের এক পাসপোর্ট ধারী চোরাচালানীও সেখানে ছিলো। আজাদের সাথে বিজিবি’র এক গোয়েন্দা সদস্যের ধস্তাধস্তিও হয়। বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য ইউপি সদস্য বিশারত আলী বিশু সেখানে হাজির হয়ে তাকে ছেড়ে দিতে বলে। দুই ঘন্টা পরে বিজিবি’র সদস্যরা তার বাড়ী ঘেরাও করে তাকে ক্যাম্পে ধরে নিয়ে যায়। পরে ৫৮ব্যাটেলিয়নের সদর দপ্তর খালিশপুরে নিয়ে যায়।

৫৮বিজিবি’র অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল কামরুল আহসান সাংবাদিকদের জানান, বিশু একজন চোরাচালানী ও মাদক ব্যাবসায়ীদের গর্ড ফাদার। গত সপ্তাহে চোরাচালান কৃত বেশ কিছু গরু বিজিবি আটকের জন্য ধাওয়া করলে ইউপি সদস্য বিশু তাতে বাধা দেয়। তিনি আরো জানান,গত শুক্রবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিজিবি’র একজন গোয়েন্দা একটা বাড়ীতে গিয়ে দেখতে পায় ৭-৮ জন লোক সেখানে ইয়াবা সেবন করছে। তার উপস্থিতি টের পেয়ে সেখান থেকে একজন মোবাইল ফোনে বিশুকে খবর দেয়। খবর পেয়ে বিশু গিয়ে নেশাখোরদের আটকে বাধা দেয় । এ সময় বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্য চিন্থিত সন্ত্রাসী আজাদকে আটক করতে গেলে সেখানে ধস্তাধস্তি হয়। বিশু আজাদকে আটকে বাঁধা দেয়। ফলে সে পালিয়ে যায়।

তবে মহেশপুর থানায় বিজিবি’র দায়ের কৃত মামলায় বিশুকে এক জন চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলে উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু মহেশপুর থানার ওসি জানান মহেশপুর থানায় বিশুর নামে কোন জিডি বা মামলা নেই।
এদিকে বিজিবি’র এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বিশুকে আটকের সময় ২ পিচ ভারতীয় ইয়াবা ট্যাবলেট, ২টি সীমসহ ২টি পুরাতন মোবাইল এবং ১টি দেশীয় অস্ত্র (চাপাতি) জব্দ করা হয়। আটককৃত আসামীকে মাদকদ্রব্য ও দেশীয় অস্ত্র চাপাতিসহ মহেশপুর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

মহেশপুর থানার ডিউটি অফিসার জানান, শুক্রবার রাত ১১টার পরে বিজিবি সদস্যরা ইউপি সদস্য বিশারত আলী বিশুকে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় তার শারীরিক অবস্থা ভালো না থাকায় গ্রহন করা সম্ভব হয়নি।
মহেশপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) রাশেদুল আলম জানান, গতকাল শনিবার সকাল ১০ টার দিকে বিজিবি মাদক ও দেশীয় অস্ত্রসহ বিশু মেম্বারকে থানায় সোপর্দ্দ করেছে। এঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।
পরে দুপুর ১টার দিকে বিশারত আলী বিশুকে ঝিনাইদহ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x