মহেশপুরে সিজারের একমাস পর নারীর পেট থেকে বের করা হলো গজ ব্যান্ডেজ

মহেশপুরে সিজারের একমাস পর নারীর পেট থেকে বের করা হলো গজ ব্যান্ডেজ

সারাদেশ

শামীম খান,মহেশপুরঃ

ঝরনা আক্তার (২০) নামের এক  অন্তস্বত্তা নারীর প্রশব বেদন উঠলে পাশ্ববর্তী সিহাব প্রাইভেট হাসপাতালে  সিজার অপারেশন করা হয় । কিন্তু হাতুড়ে ডাক্তারের ভূলের কারণে পেটের ভিতরে রয়ে যায় গজ ব্যান্ডেজ।

পরে একমাস পর জীবননগর মনোয়ারা প্রাইভেট হাসপাতালে আবারও অপারেশনের মাধ্যমে বের করা হলো পেটের ভিতরে রেখে দেওয়া সেই গজ ব্যান্ডেজ গুলো। এ ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ভৈরবা বাজারে গড়ে উঠা সিহাব প্রাইভেট হাসপাতালে।

রোগীর পরিবারের স্বজনরা জানান, গত ৮ আগস্ট সন্ধ্যায় মহেশপুরের কাজিরবেড় ইউনিয়নের পাকরাইল গ্রামের স্বপনের স্ত্রী ঝরনা আক্তারকে সিজার অপারেশনে ভর্তি করা হয় ভৈরবা বাজারের সিহাব প্রাইভেট হাসপাতালে। সেখানেই তাকে সিজার অপারেশন করা হয়।

হাতুরে ডাক্তারের ভূলের কারণে অপারেশনের সময় পেটের ভিতরে রেখে দেওয়া হয় গজ ব্যান্ডেজ। গত ৮ সেপ্টেম্বর রাতে জীবননগর মনোয়ারা প্রাইভেট হাসপাতালে ঝরনা আক্তারকে আবারও অপারেশন করে পেটের ভিতরে রেখে দেওয়া সেই গজ ব্যান্ডেজ বেরা করা হয়।

তবে অভিযোগ রয়েছে সিহাব প্রাইভেট হাসপাতালের মালিক আব্দুস সেলিম,শাহা আলম ও নার্স ফতেমা আক্তার ডাক্তার না পেয়ে রাতের অন্ধ কারে নিজেরাই ডাক্তার সেজে আপারেশন করে থাকেন। ঝরনা আক্তারকে তারাই ডাক্তার সেজে সিজার অপারেশন করেন। যার কারনেই রোগীর পেটের ভিতরে রয়ে যায় গজ ব্যান্ডেস।

এব্যাপারে সিহাব প্রাইভেট হাসপাতালের মালিক আব্দুস সেলিমের মুঠো ফোনে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ না করে বারবার কেটে দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *