সোমবার থেকে যশোর জেলা লকডাউন ঘোষণা

Spread the love

উৎস ডেস্কঃ
জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সমন্বয় কমিটির সভা রবিবার যশোর সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফের সভাপতিত্বে সভায় পুলিশ সুপার আশরাফ উদ্দিন, করোনা সংক্রান্ত সেনা তৎপরতায় যশোরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লে. কর্নেল নিয়ামুল হক, সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন, যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দীলিপ কুমার রায়সহ সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভা সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় সভা থেকে জেলাকে লকডাউন ঘোষণার পক্ষে মত দেয়া হয়।

রবিবার বিকেলে যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। জেলায় করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

সোমবার ভোর ৬টা থেকে যশোর জেলাকে অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত এই আদেশ বলবৎ থাকবে।

তবে লকডাউনের মধ্যে জরুরি সেবা কার্যক্রম অব্যাত থাকবে বলে তিনি জানান। বর্তমানেও তা বলবৎ আছে, তবে লকডানে নতুন কী বৈশিষ্ট্য জানতে চাইলে ডিসি বলেন, ‘এটা আসলে একটা ‘পপুলার ডিমান্ড’। এর মধ্য দিয়ে মানুষের চলাচল কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

যশোরের সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন বলেন, রবিবার পর্যন্ত যশোর জেলায় ৩০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে দুজন চিকিৎসক, ৮ জন স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছে। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ৬ জনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বাকিদের বাড়িতে রেখেই চলছে চিকিৎসা।

বিকেলে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ জানান, যশোরকে লকডাউনের সিদ্ধান্ত হয়েছে; যা সোমবার ভোর ছয়টা থেকে কার্যকর হবে। লকডাউনের আওতায় থাকবে গোটা যশোর জেলা। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। অথচ কোনোভাবেই মানুষকে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী শৃঙ্খলার মধ্যে আনা যাচ্ছে না। সেই কারণে আরো কঠোর পদক্ষেপ হিসেবে জেলা লকডাউন করা হচ্ছে। এর আগে যশোরের চৌগাছা শহরকে প্রথম লকডাউন করা হয়। পরে গোটা উপজেলাকে লকডাউনের আওতায় আনা হয়।

উল্লেখ্য, এর আগে রবিবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) করোনা ভাইরাস পরীক্ষায় যশোর জেলায় আরও ১৪ করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এ নিয়ে এই জেলায় রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ২৯-এ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x