হাটবাজারের জায়গা জবর দখল

Spread the love
  • 1
    Share

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা হাটবাজারের জায়গা জবরদখল করে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় ভাবে প্রভাবশালী শফিয়ার রহমান নামের এক ব্যবসায়ী অবৈধ ভাবে দখল করা ওই জায়গায় নানা ধরনের পণ্যসামগ্রী জড়ো করে রাখে।

এর ফলে অর্ধশতাধীক ভাসমান ক্ষুদ্র দোকানির ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে তারা। হাটবাজারের সরকারি ওই জায়গা দখলমুক্ত করার জন্য দাঁতভাঙ্গা হাটবাজারের ইজারাদার সোহেল রানা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

রবিবার (৪অক্টোবর) সরেজমিনে দেখা গেছে বাজারের পশ্চিমপাশে ভাসমান দোকানিদের ছাপড়া ঘর দখল করে সেখানে নানা ধরনের পণ্যসামগ্রী জড়ো করে রাখা হয়েছে। ভাসমান দোকানি ওয়াহেদুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ ১০ বছর ধরে বাজারে চটি বিছিয়ে কাঁচা তরকারি বেচতাম। সেই জায়গা দখল হওয়ায় আমার ব্যবসা বন্ধ প্রায় এক সপ্তাহ ধরে। আয়-রোজগার বন্ধ থাকায় বাড়িতে আমার স্ত্রী সন্তানরা খেয়ে না খেয়ে কষ্টে দিন পার করছে।

হাটবাজারের কাঁচামাল দোকানি ছক্কু মিয়া বলেন, ১০দিন থিকা দোকান করতে পারছি না। আয়রোজগার বন্ধ থাকায় ধারকর্জ করে স্ত্রীসন্তানদের নিয়ে কোন মতে চলছি। মোখলেছুর রহমান ও বদিউজ্জামান অভিযোগ করেন, অবৈধ ভাবে দখল হওয়ার কারনে বাজারের কাঁচাপন্য শাকসবজি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বিক্রি হচ্ছে রাস্তায় বসে।

দাঁতভাঙ্গা হাটবাজারের ইজারাদার সোহেল রানা অভিযোগ করেন, শফিয়ার রহমান নামের এক প্রভাবশালী সরকারি জায়গা দখল করে রেখেছে। এতে অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ির ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেছে। হাটুরেদের যাতায়াতেও দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এলাকাবাসি ওই অবৈধ দখলদারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অভিযুক্ত অবৈধ দখলবাজ শফিয়ার রহমান বলেন, ওই জায়গা আমার ক্রয়কৃত সম্পদ। যা ভাড়ায় দোকানিদের ব্যবসা করতে দেওয়া হয়েছিল। এখন আমার জায়গা আমি দখল করেছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল ইমরান বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উপসহকারি কমিশনার ভূমিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x