৩৩৩ নাম্বারে ত্রাণ চেয়ে চেয়ারম্যানের থাপ্পড় খেলেন কৃষক

Spread the love
  • 191
    Shares

উৎস ডেস্কঃ
নাটোরের লালপুর উপজেলার অর্জুনপুর-বরমহাটি (এবি) ইউনিয়নের হত দরিদ্র কৃষক ত্রানের জন্য ৩৩৩ হটলাইন নম্বরে ফোন দেওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের হাতে ‘মার খেয়েছেন’ এক দরিদ্র কৃষক। ৩৩৩ নম্বরে ফোন কের ত্রাণ চাওয়ায় নাকি অপমানিত হয়েছেন চেয়ারম্যান!

নাটোরের লালপুর উপজেলার অর্জুনপুর-বরমহাটি (এবি) ইউনিয়নের এ ঘটনা শুনে মঙ্গলবার তাকে ডেকে নিয়ে ত্রাণ দিয়েছেন এবং এ অভিযোগ তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ারও আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

নির্যাতিত কৃষক এবি ইউনিয়নের আঙ্গারিপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলাম।

তার অভিযোগ, ১০ এপ্রিল ৩৩৩ হটলাইন নম্বরে ফোন করে ত্রাণের আবেদন করেন। খুব তাড়াতাড়ি তার কাছে ত্রাণ পৌঁছে যাবে বলে জানানো হয়।

একদিন পর ১২ এপ্রিল স্থানীয় চেয়ারম্যান চৌকিদার দিয়ে তাকে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে পাঠান। তিনি ওই দিনই পরিষদে গেলে চেয়ারম্যান তাকে ত্রাণের প্রয়োজন না জানিয়ে কেন ফোন করেছে সে ব্যাপারে জানতে চান। এ নিয়ে দু-এক কথার পর চেয়ারম্যান খেপে গিয়ে তাকে চড়ধাপ্পড় মারেন বলে জানান তিনি।

দরিদ্র কৃষক শহিদুল ইসলাম বলেন, “করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে বাজারঘাট বন্ধ। পরিবারে খাবারের অভাব চলছে কিন্তু লজ্জা করে আমি কাউকে বিষয়টি জানাতে পারছিলাম না।

“হঠাৎ টেলিভিশনে ৩৩৩ নম্বরে ফোন করলে খাদ্য পাওয়ার কথা জানতে পারেন। তাই তিনি সরাসরি ৩৩৩ নম্বরে ফোন করেন। খাবারের আশ্বাসও পাই।

“কিন্তু চেয়ারম্যান ডেকে নিয়ে গিয়ে মারপিট করাতে আমি কষ্ট পাইছি।”

তবে মারধরের কথা অস্বীকার করে এবি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার বলেন,ওই কৃষকের সঙ্গে উত্তেজিত হয়ে কিছু কথা বলা হয়েছিল। “মারপিট করা হয়নি।

“বিষয়টি ইউএনওর কার্যালয়ে মীমাংসা করা হয়েছে।”

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মুল বানীন দ্যুতি জানান, ওই ঘটনার কথা শুনে তিনি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে ডেকে এনেছিলেন। তার কাছে শোনা হয়েছে।

বাকিটা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x